মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২২ ||

তথাগত অনলাইন |বুড্ডিস্ট নিউজ পোর্টাল

প্রকাশের সময়:
বৃহস্পতিবার ২১জুলাই ২০২২, ১৭.০০

159

সুমনাপাল ভিক্ষু

চিকিৎসাবিজ্ঞানী ডা. ধীমান বডুয়া

প্রকাশের সময়: বৃহস্পতিবার ২১জুলাই ২০২২, ১৭.০০

159

সুমনাপাল ভিক্ষু

চিকিৎসাবিজ্ঞানী ডা. ধীমান বডুয়া

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন চিকিৎসাবিজ্ঞানী ডা. ধীমান বডুয়া তৎকালীন বৃটিশভারতের অভিভক্ত বাংলায় সর্বোচ্চ নাম্বার পেয়ে মেধাবৃত্তি পাওয়া চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার নোয়াপাড়ার বৈদ্যপাড়া গ্রামের জন্ম গ্রহন করেন। তার বাবার নাম দিবন্ধু বড়ুয়া এবং মায়ের নাম প্রমোদাবালা বড়ুয়া। তিনি বিগত ২০০৩ সালে বাংলাদেশ সরকার আয়োজিত ‘এশীয় অঞ্চলের চিকিৎসা বিজ্ঞানী সম্মেলনে ‘লাইফ টাইম এচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’-এ ভূষিত হন।

ডা. ধীমাস ১৯৪৭ থেকে ১৯৪৮ বৃটিশভারত আর্মী মেডিক্যাল কোরে যোগদান করেন এবং কার্যকালীন মেনশন ইন ডেসপাচিং সম্মান অর্জন করেন। ১৯৪৯ থেকে ১৯৫৪ পর্যন্ত কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। ১৯৫৬ থেকে ১৯৮০ বিশস্বাস্থ্য সংস্থার সদস্য এবং ১৯৮১ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত বিশস্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শক ছিলেন। খ্যাতিমান এই বিজ্ঞানী জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক মেডিক্যাল জার্নাল এবংবিশস্বাস্থ্য সংস্থার জার্নালে শতাধিক গবেষনাধর্মী লেখা প্রকাশিত হয়েছে।

ডাক্তার ধীমান বড়ুয়া কর্মজীবনে ‘ডায়রিয়া এবং কলেরা’ নিয়ে গবেষণা করেছেন। ডায়রিয়া নিয়ন্ত্রণে ডা. ধীমান বড়ুয়া ওরস্যালাইনের সঠিক মান নির্ধারণের ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রেখেছেন। দেশে এবং বিদেশে ডা. বড়ুয়ার ওই গবেষণায় উপকৃত হয়েছেন। বাংলাদেশের ঢাকায় অবস্থিত আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা এবং পুনর্বাসন কেন্দ্র (আইসিডিডিআরবি) এর গবেষণায় এবং কার্যক্রম পরিচালনায় তার ভূমিকা বিশেষভাবে উল্লেখ্যযোগ্য।